চিরাচরিত নবীন-প্রবীণ দ্বন্দ্ব! মধ্যপ্রদেশের পর কি এ বার রাজস্থান?

     

নবীন-প্রবীণ দ্বন্দ্ব মেটাতে না পারার ফল ভুগছে কংগ্রেস। প্রবীণ কমল নাথের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে কংগ্রেস ছেড়েছেন নবীন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া (Jyotiraditya Scindia)। তার জেরে সংকটে পড়ে গিয়েছে মধ্যপ্রদেশ সরকার। এর পরেই রাজনৈতিক মহলের জল্পনা, মধ্যপ্রদেশের পর কি রাজস্থানে কোনো নাটক অপেক্ষা করছে?

মধ্যপ্রদেশের মতো রাজস্থানেও এই দ্বন্দ্ব রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত (Ashok Gehlot) আর উপমুখ্যমন্ত্রী সচিন পায়লটের মধ্যে দ্বন্দ্ব এখন সর্বজনবিদিত।

২০১৮-এর ডিসেম্বরে বিধানসভা নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে ক্ষমতা দখল করে কংগ্রেস। ভোটের ফলাফলের পরেই অশোক-সচিনে দ্বন্দ্ব শুরু। ভোটের আগে প্রদেশের কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন সচিন। ফলে তিনি দাবি করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পদটা তাঁরই প্রাপ্য। অন্য দিকে অশোক গহলৌত ঘনিষ্ঠ একাধিক জয়ী বিধায়ক ঠারেঠোরে জানিয়ে দেন, প্রবীণ নেতাকে মুখ্যমন্ত্রী না করা হলে, তাঁরা দল ছাড়তেও পারেন।

ঝুঁকি নেননি তৎকালীন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi)। নিজে মন থেকে নবীন নেতাকে চাইলেও, প্রবীণ অশোক গহলৌতকেই মুখ্যমন্ত্রী করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে ঘনিষ্ঠ পায়লটকে বুঝিয়ে অশোকের ডেপুটির পদটি দেন রাহুল।

কিন্তু ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে অশোক গহলৌতের নেতৃত্বে ভোটযুদ্ধে নেমে ভরাডুবি হয় কংগ্রেসের। তার পর থেকে রাজস্থানে নেতৃত্ব পরিবর্তনের ব্যাপারে সরব হন কংগ্রেসের একটা বড়ো অংশ। এমনকি গহলৌতকে সরিয়ে নবীন মুখ পায়লটকেই মুখ্যমন্ত্রী করার দাবি জানাতে শুরু করে ওই অংশটি।

তবে সে যাত্রায় পার পেয়ে যান গহলৌত। যদিও এখনও মাঝেমধ্যেই নাম না করে গহলৌতের সমালোচনা করেন সচিন পায়লট (Sachin Pilot)।

এই অবস্থায় তাই জল্পনা শুরু হয়েছে জ্যোতিরাদিত্যের পথে সচিন হাঁটবেন কি না। যদিও রাজনৈতিক বিশ্বজনদের একাংশের ধারণা, মধ্যপ্রদেশের নির্বাচনের পর জ্যোতিরাদিত্য সে ভাবে কোনো গুরুদায়িত্ব পাননি। কিন্তু সচিনকে উপমুখ্যমন্ত্রী করা হয়েছে। ফলে বিজেপিতে যাওয়ার কোনো সিদ্ধান্ত তিনি নেবেন না।

তা ছাড়া বিজেপি রাজস্থানের ব্যাপারে ইচ্ছুক নয় বলেই জানা গিয়েছে কংগ্রেস সূত্রে। কারণ রাজস্থানের কংগ্রেস সরকারকে হঠাতে অন্তত তিরিশ জন বিধায়কের দরকার বিজেপির। এ ছাড়া অন্য একটি কারণেও রাজস্থানে সরকার বদল করতে বিজেপি চায় না। ওই সূত্রের মতে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের প্রিয়পাত্রী নন বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়া (Vasundhara Raje Scindia)। কোনো ভাবেই তাঁকে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর পদে ফিরিয়ে আনতে চায় না মোদী-শাহ জুটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close