Budget 2020 : দেখে নিন কী কী বললেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী


এক হাতে দিলেন। অন্য হাতে কেড়েও নিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন! বিভিন্ন ধাপে ভেঙে আয়করের হার কমালেন যেমন, তেমনই কর-ছাড় পাওয়ার যে ধারাগুলি চালু ছিল এত দিন, নতুন আয়কর ব্যবস্থায় তার অনেকগুলিই তুলে দিলেন।শনিবার কেন্দ্রীয় বাজেট-প্রস্তাবে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ঘোষণা করলেন, আড়াই থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ে আগের মতোই আয়কর দিতে হবে। ৫ শতাংশ হারে। তবে ৫ থেকে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ে এত দিন যে হারে (২০ শতাংশ) আয়কর দিতে হত, তার কিছু অদলবদল করা হয়েছে। ভাঙা হয়েছে দু’টি ধাপে। ৫ থেকে সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ে এ বার আয়কর দিতে হবে ১০ শতাংশ হারে। আর সাড়ে ৭ লক্ষ টাকা থেকে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ে দিতে হবে ১৫ শতাংশ হারে। ফলে, ৫ থেকে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ের করদাতাদের কিছুটা স্বস্তি মিলল, দৃশ্যত।একই ভাবে আয়করের হারে রদবদল ঘটানো হয়েছে পরবর্তী পর্যায়ের বাৎসরিক আয়ের ধাপটিতেও। ১০ লক্ষ থেকে ১৫ লক্ষ টাকার বেশি বাৎসরিক আয়ে এত দিন যে হারে কর দিতে হত (৩০ শতাংশ), তা কিছুটা কমাতে ওই পর্যায়টিকেও ভেঙে দেওয়া হল তিন ভাগে।১০ লক্ষ থেকে সাড়ে ১২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ের ক্ষেত্রে এ বার আয়কর দিতে হবে ২০ শতাংশ হারে। ১২ লক্ষ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বাৎসরিক আয়ের ক্ষেত্রে আয়করের হারটা হবে ২৫ শতাংশ। তবে বাৎসরিক আয় ১৫ লক্ষ টাকার বেশি হলে আয়করের হার থাকবে আগের বছরের মতোই। ৩০ শতাংশ।কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী এ দিন এও জানান, আগের আয়কর-ব্য়বস্থায় থাকা কর-ছাড়ের সুবিধাগুলি না নিলেও অবশ্য যাঁদের বাৎসরিক আয় ১৫ লক্ষ টাকার বেশি, তাঁদের ১ লক্ষ ৯৫ হাজার টাকা কর দিতে হবে। আগের মতো ২ লক্ষ ৭৩ হাজার টাকার করের বোঝা বইতে হবে না।এই ঘোষণাটুকুর পর আমার, আপনার মতো সাধারণ আয়করদাতাদের প্রাথমিক ভাবে মনে হয়েছিল, যাক, কিছুটা স্বস্তি মিলল তা হলে!কিন্তু সেই আশার গুড়ে বালি! কারণ, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী এ দিন এর পরেই জানালেন, এত দিন আয়করে ছাড় পাওয়ার যে যে ধারাগুলি চালু ছিল, নতুন আয়কর ব্যবস্থার সুযোগসুবিধা পেতে হলে সেই ধারাগুলির সুবিধা আর পাওয়া যাবে না।সে ক্ষেত্রে সীতারামনের প্রস্তাব, আয়করদাতারা দু’টি ধারার মধ্যে যে কোনও একটিকে বেছে নিতে পারেন। থাকতে পারেন পুরনো আয়কর ব্যবস্থায়। যেখানে কর-ছাড় পাওয়ার বিভিন্ন ধারার সুযোগসুবিধা নেওয়া যায়। আবার তাঁরা চলে আসতে পারেন নতুন আয়কর ব্যবস্থার আওতাতেও। সে ক্ষেত্রে পুরনো ব্যবস্থায় কর-ছাড় পাওয়ার ধারাগুলি আর তাঁদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না।আগে আয়কর আইনের ৮৭এ ধারায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত করযোগ্য আয়ে ২,৫০০ টাকা পর্যন্ত রিবেট মিলত। গত বার সেই ধারা সংশোধন করা হয়। যার ফলে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত করযোগ্য আয়ে ১২,৫০০ টাকা পর্যন্ত রিবেট পাওয়ার সুবিধা মিলেছিল। আড়াই লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করমুক্ত থাকায়, ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত করযোগ্য আয়ে ঠিক ১২,৫০০ টাকাই কর বসে।মনে রাখা দরকার, করযোগ্য আয় ৫ লক্ষ টাকার কম হলে রিবেটের পরিমাণও কমবে। কিন্তু করযোগ্য আয় ৫ লক্ষ টাকার এক পয়সাও বেশি হলে কোনও রিবেটই মিলবে না। এত দিন আড়াই থেকে ৫ লক্ষ টাকা আয়ে ৫ শতাংশ হারে কর দিতে হত। তার উপরে ২০ শতাংশ, ১০ লক্ষ টাকার উপরে ৩০ শতাংশ হারে কর বসত। গত বারেও সেই করের হার বদলানো হয়নি।৮০সি ধারায় প্রভিডেন্ট ফান্ড, জীবন বিমার মতো বিভিন্ন খাতে ১.৫ লক্ষ টাকা সঞ্চয়ে আয়কর ছাড় মেলে। এর উপরে গৃহঋণে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত সুদ, জাতীয় পেনশন প্রকল্প, নিজের ও বাবা-মায়ের জন্য মেডিক্লেমের মতো বেশ কিছু খাতে ব্যয় করা টাকার উপরেও ছাড় মেলে। এই সমস্ত ছাড়যোগ্য আয় মোট আয় থেকে বাদ দিলে করযোগ্য আয় বার হয়। 

  1. মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধি করা এবং আয় বাড়ানোর জন্য ২০২০-২১ এর বাজেট, এই মন্তব্য করে দ্বিতীয়বারের বাজেট ভাষণ শুরু করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী  নির্মলা সীতরামন। তিনি বলেন, “উচ্চহারে বৃদ্ধির মাধ্যমে আমাদের যুব সম্প্রদায় লাভজনকভাবে এবং ভালভাবে কর্মসংস্থান পাবে”, তিনি উল্লেখ করেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দেশকে ৫ ট্রিলিয়ন অর্থনীতিতে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য পূরণে বদ্ধপরিকর সরকার।
     
  2. ভারত বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনৈতিক দেশ, বলে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, “অর্থনীতির ভিত শক্ত, তার ফলে বৃহত্তর অর্থনৈতিক স্থিতাবস্থা রয়েছে…এবং মুদ্রাস্ফীতি ঠিকভাবে ধরে রাখা গিয়েছে”। ২০১৪ এর মার্চে কেন্দ্রের ঋণ ছিল জিডিপির ৫২.২ শতাংশ, তা কমে হয়েছে ৪৮.৭ শতাংশ।
     
  3. অর্থমন্ত্রী বলেন, “বাজেটের ভিত্তি উচ্চাকাঙ্খার ভারত, আর্থিক উন্নতি এবং যত্নবান সমাজ”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close