BREAKING : করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় সফল, এইবার নির্মূল হবে করোনা ভাইরাস

     

কোভিড-১৯ বা করোনাভাইরাস নিছক সাধারণ কোন ফ্লু ভাইরাস নয়। বিজ্ঞানীরা বলছেন, জিনের গঠন বদলে প্রতিনিয়ত এই ভাইরাস নিজের চরিত্রই বদলে ফেলছে। এই ভাইরাসের বিশেষ স্ট্রেন সার্স-সিওভি-২-এর স্পাইক প্রোটিন জোড় বাঁধছে মানুষের শরীরের বিশেষ জিনের সঙ্গে। বাহক কোষ বা হোস্ট সেলের সাহায্যেই আরও সংক্রামক হয়ে উঠছে করোনা। এত বেশি নিজেকে বদলাচ্ছে এই ভাইরাস যে এর মতিগতি বোঝাই অসম্ভব হয় পড়ছে বিশ্বের বাঘা বাঘা ভাইরোলজিস্টদের কাছে। সংক্রমণ রোখার ভ্যাকসিন তৈরির প্রক্রিয়াও তাই বিলম্বিত হচ্ছে। তবে আশার আলো এটাই যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, হংকং, অস্ট্রেলিয়া, ইজরায়েল এমনকি ভারতেও এই মারণ ভাইরাসকে প্রতিরোধ করার উপায় আবিষ্কারের চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানী-গবেষকরা। কাজও নাকি এগোচ্ছেও তরতরিয়ে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) নোভেল করোনার সংক্রমণকে প্যানডেমিক বা বিশ্বজোড়া মহামারি ঘোষণা করেছে। চীনে এখন ভাইরাস সংক্রামিত সাত লাখের বেশি, মৃত্যু হয়েছে সাড়ে তিন হাজারের বেশি। চীনের পরেই করোনা মহামারি সবচেয়ে বেশি আঘাত হেনেছে ইতালি ও ইরানে। ফ্রান্স, জার্মানি, পর্তুগাল, ব্রিটেন, আমেরিকাতেও প্রতিদিন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা। ডব্লিউএইচওর রিপোর্ট বলছে বিশ্বে এখনও পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মতের সংখ্যা ৬ হাজার ৫২৩ জন। আক্রান্তের সংখ্যা অন্তত ১ লাখ ৬৯ হাজার।

আমেরিকা দাবি করেছে আজ থেকেই তারা করোনাভাইরাসে রোখার ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করেছে। ভাইরাসকে নির্মূল করার জন্য কোমর বেঁধে নেমেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা। জোরদার কাজ চলছে ইজরায়েল, চীন এমনকি ভারতেও।

ভ্যাকসিন তৈরির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরুর কথা জানিয়ে মার্কিন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্থ (এনআইএইচ) সোমবার (১৬ মার্চ) প্রেস বিবৃতি জারি করে বলেছে, ভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরিই আছে। আজ থেকেই তার ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু হবে। প্রথমে ইঁদুরের উপর ও পরে মানুষের উপর প্রয়োগ করা হবে।

সিয়াটেলের কাইসার পার্মানেন্ট ওয়াশিংটন হেল্থ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষকরা বলেছেন, ভ্যাকসিন এখনও পরীক্ষামূলক স্তরেই আছে। আরও ১৮ মাস সময় লাগবে পুরোপুরি এই ভ্যাকসিনকে বাজারে আনতে। তার আগে নিরন্তর এর ট্রায়াল চলবে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেল্থের তৈরি এই ভ্যাকসিনের ফর্মুলা এখনও সামনে আনেননি গবেষকরা। জানা গেছে, ৪৫ বছরের এক রোগীর উপর এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছিল। দেখা গেছে, সেই রোগী চিকিৎসায় সাড়া দিয়েছেন। এনআইএইচের সঙ্গে এই ভ্যাকসিনের রাসায়নিক ফর্মুলা বানিয়েছে ম্যাসাচুসেটসের বায়োটেকনোলজি কোম্পানি মোডার্না। পেনসিলভানিয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালসও ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে এগিয়ে আছে। আগামী মাসেই তারা ক্লিনিকাল ট্রায়ালের রিপোর্ট সামনে আনবে।

যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হয়েছে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনের পরীক্ষা। দেশটির সিয়াটল শহরের কাইজার পারমানেন্ট গবেষণাকেন্দ্রে সোমবার এই পরীক্ষা শুরু হয়। এখন পর্যন্ত একজনের শরীরে করোনার ভ্যাকসি পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে করোনা ভ্যাকসিন তৈরি দলের বিজ্ঞানী ডক্টর লিসা জ্যাকসন বলেন, সবাই জরুরি অবস্থায় যা পারে তাই করতে চায়।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, এক মাস ধরে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনের পরীক্ষা চালানো হবে। ৪৫ জন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে এই ভ্যাকসিন পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানায়, এই ভ্যাকসিন বাজারে আসতে এক থেকে দেড় বছর সময় লাগতে পারে।

প্রসঙ্গত, চীনসহ গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়েই চলেছে। করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এর ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে এখনো এর কোন প্রতিষেধক বাজারে আনতে পারেনি বিজ্ঞানীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close