জন্মসূত্রের সঙ্গে জড়িয়ে আছে পাকিস্তান, রাজধানীর প্রথম মহিলা মুখ্যমন্ত্রী

প্রেমদিবসেই জন্মদিন। প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের (Sushma Swaraj) ৬৮-তম জন্মদিন পালন করছে। প্রবীণ বিজেপি নেত্রীর জন্ম ১৯৫২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি। ২০১৯-এর ৬ আগস্ট হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চলে যান সুষমা স্বরাজ। পেশায় আইনজীবী শ্রীমতী ১৯৭৩ সালে আম্বালা ক্যান্টনমেন্টে থেকে বিজেপির প্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনে জেতেন। হরিয়ানার ছাত্র রাজনীতি থেকেই সুষমা স্বরাজের উঠে আসে। সেখান থেকে একেবারে দেশের দ্বিতীয় মহিলা বিদেশমন্ত্রীর আসন। লোকসভার চার বারের সাংসদ। রাজ্যসভার তিন বারের সাংসদ। জনগণের মন্ত্রী হিসেবেই থেকে গিয়েছেন তিনি। বিজেপির রাজনৈতিক পরিমণ্ডলেও কুড়িয়ে নিয়েছেন সম্মান। সংসদীয় পুরস্কার রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। তাঁর ৬৮ বছরের জন্মদিনে রইল লেটেস্টলি পরিবারের শ্রদ্ধার্ঘ্য।

পাকিস্তানের লাহোরের ধরমপুরায় থাকতেন সুষমা স্বরাজের বাবা-মা। আম্বালা ক্যান্টনমেন্টের সন্তান ধর্ম কলেজে পড়ার সময় এনসিসি-তে বেস্ট ক্যাডেটের সম্মান পান তিনি। ভাল হিন্দি বক্তা হিসেবে হরিয়ানার হরিয়ানার ভাষা দপ্তরের আয়োজিত অনুষ্ঠানেও পান সেরার সম্মান। স্বরাজ কৌশলকে বিয়ে করেন তিনি, যিনি ৩৪ বছর বয়সেই সেনিয়র অ্যাটভোকেটের সম্মান অর্জন করেছিলেন। ১৯৭৭ সালে মাত্র ২৫ বছর বয়সেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হন সুষমা স্বরাজ। ১৯৯৬ সালে ১৩ দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী। সেই সময় লোকসভা বিতর্কের টেলিকাস্টের ব্যবস্থাপনায় ছিলেন শ্রীমতি স্বরাজ।

দেশের প্রথম কোনও রাজনৈতিক দলের মহিলা মুখপাত্র হন সুষমা স্বরাজ। বিজেজিপ তাঁকে এই পদেই প্রথম নিয়োগ করে। ১৯৯৮ সালে দিল্লির প্রথম মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন শ্রীমতী স্বরাজ। সংসদে প্রথম মহিলা বিরোধী নেত্রীর পদটিতে তিনিই বসেছিলেন। জ্যোতিষ শাস্ত্র ও রত্নবিদ্যায় ঘোরতর বিশ্বাসী ছিলেন সুষমা স্বরাজ। শুধু রাজনৈতিক সম্মানই নয় সুবক্তা হিসেবেও তিনি সবিশেষ পরিচিত। আন্তর্জাতিক ফোরামে বহুবার দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। পার্লামেন্টারি অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। মহিলা সাংসদ হিসেবে তিনিই প্রথম যাঁর ঝুলিতে রয়েছে এই সম্মাননা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close